বিক্ষোভকারীদের 'গুলি করে হত্যার' নির্দেশ

বিক্ষোভকারীদের 'গুলি করে হত্যার' নির্দেশ

বিক্ষোভকারীদের 'সন্ত্রাসী' আখ্যা দিয়ে কোনোরকম সতর্কতা ছাড়াই নিরাপত্তা বাহিনীকে তাদের গুলি করে হত্যার নির্দেশ দিয়েছেন কাজাখস্তানের প্রেসিডেন্ট কাসিম জোমার্ত তোকায়েভ। শুক্রবার একটি টেলিভিশন ভাষণে রাষ্ট্রপতি সতর্ক করে দেন যে শৃঙ্খলা পুনরুদ্ধারের লক্ষ্যে একটি জোরদার 'সন্ত্রাসবিরোধী' অভিযানের অংশ হিসাবে আরো বিশৃঙ্খলারোধে প্রয়োজনে  বিক্ষোভকারীদের 'ধ্বংস' করা হবে।

প্রায় এক সপ্তাহের বিক্ষোভে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যসহ 'কয়েক ডজন' মানুষ নিহত হয়েছে বলে জানা যায়। সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র কাজাখস্তান ১৯৯১ সালে স্বাধীনতা ঘোষণা করে। নজিরবিহীন এই সঙ্কটটি কাজাখস্তানের স্বাধীনতাপরবর্তী তিন দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে সপ্তাহান্তে ২৬ জন 'সশস্ত্র অপরাধী'কে 'হত্যা' ও তিন হাজারেরও বেশি মানুষকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় ১৮ জন পুলিশ ও ন্যাশনাল গার্ড সার্ভিস সদস্যও নিহত হয়।

নতুন বছরের শুরুতে কাজাখস্তানে তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস বা এলপিজির দাম দ্বিগুণের বেশি বাড়ানো হয়। দেশটির পশ্চিমাঞ্চলে গাড়ির জ্বালানি হিসেবে এলপিজি ব্যবহার করা হয়। সেখানেই বিক্ষোভ শুরু হয়। জ্বালানিসমৃদ্ধ কাজাখস্তান তেল ও গ্যাস রপ্তানি করে থাকে। এই মূল্যবৃদ্ধি অন্যায্য দাবি করে গত রবিবার থেকে বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় নেমে আসে। তবে এর সঙ্গে এখন আবার রাজনৈতিক অসন্তোষও যুক্ত হয়েছে। বিক্ষোভ ক্রমে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়েছে। 

প্রেসিডেন্ট কাসিম জোমার্ত তোকায়েভের অনুরোধে রাশিয়া কাজাখস্তানকে ‘স্থিতিশীল করার জন্য’ সেনা পাঠিয়েছে। রাশিয়া, কাজাখস্তান, বেলারুশ, তাজিকিস্তান, কিরগিজস্তান ও আরমেনিয়া নিয়ে গঠিত নিরাপত্তা জোট সিটিএসওর আওতায় সেনা পাঠিয়েছে রাশিয়া।

সাবেক সোভিয়েত প্রজাতন্ত্র কাজাখস্তান ১৯৯১ সালের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীনতা ঘোষণা করে। কাসিম জোমার্ত তোকায়েভ দেশটির দ্বিতীয় প্রেসিডেন্ট। তবে বিক্ষোভকারীদের ক্ষোভের মূল লক্ষ্য তাঁর পূর্বসূরি শাসক নুরসুলতান নাজারবায়েভ। তিনি পদ ছেড়ে দেওয়ার পরও একটি ক্ষমতাশালী জাতীয় নিরাপত্তাসংক্রান্ত পদে আসীন ছিলেন। ৮১ বছর বয়সী নাজারবায়েভ ২০১৯ সালে ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ালেও এখনো রাজনৈতিকভাবে বেশ প্রভাবশালী। তাঁর পরিবারই কাজাখস্তানের অর্থনীতির নিয়ন্ত্রক বলে মনে করা হয়।

Advertisement