বন্ধুর সহযোগিতায় এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী চয়ন

বন্ধুর সহযোগিতায় এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী চয়ন

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী চয়ন তালুকদার। বন্ধুর সহযোগিতায় লিখে বিশেষ পদ্ধতিতে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের নিতাই তালুকদারের ছেলে চয়ন তালুকদার। 

আজ বৃহস্পতিবার স্বরূপ চন্দ্র সরকারি উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে প্রথম পরীক্ষা শেষে চয়ন আজকের পত্রিকাকে বলেন, ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনার প্রতি তাঁর বেশ আগ্রহ ছিল। দু-চোখ অন্ধ থাকায় তাঁর পড়ালেখা অনিশ্চিত ছিল। সমবয়সী ছোট বোন যখন পড়তে বসত তখন তার পাশে বসে শুনে শুনে তিনি পড়া শিখে ফেলতেন। পরে তিনি ওই পড়া বলতেন অন্যজন লিখে দিত।

এভাবে তিনি এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়ে জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজে ভর্তি হন। কলেজ কর্তৃপক্ষের সহায়তায় শ্রুতি লেখনপদ্ধতিতে পরীক্ষায় অংশ নেন। তাঁকে শ্রুতি লেখনে সহায়তা করেন বন্ধু মাজহারুল ইসলাম। মাজহারুল ইসলাম এসএসসি পরীক্ষার সময়ও শ্রুতি লেখনের দায়িত্ব পালন করেন। 

চয়নের শ্রুতি লেখক মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘চয়ন বলে দেয় আমি শুধু খাতায় লিখে দিই। এতে আমাদের কোনো অসুবিধা হয় না। সে পড়ায় ভালো।’ 

চয়নের বাবা নিতাই তালুকদার বলেন, ‘জন্মগতভাবেই চয়নের দুই চোখ অন্ধ। তবে ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনায় তার আগ্রহ ছিল।  ভাইবোন মিলে একসঙ্গে পড়ালেখা করে এবার দুজন এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে।  অভাব-অনটনের কারণে ঠিকমতো তাদের পড়ালেখার খরচ জোগাতে পারছি না।’  

জগন্নাথপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘চয়নকে শিক্ষা বোর্ড থেকে শ্রুতি লেখনের অনুমতি এনে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। আমরা তার সফলতা কামনা করছি।’ 

Advertisement