খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার বিষয়ে যে মত দিলো আইন মন্ত্রণালয়

দুর্নীতি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত বিশেষ শর্তে অস্থায়ীভাবে মুক্ত থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেওয়ার ‘আইনি সুযোগ নেই’ বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে মতামত পাঠিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়।   গতকাল মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা জানান। তিনি বলেন, ‘আইনমন্ত্রী জানিয়েছেন—বেগম জিয়াকে বিদেশে পাঠানোর আইনি সুযোগ নেই। কারণ, দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত হয়ে বিশেষ শর্তে অস্থায়ীভাবে মুক্ত আছেন উনি। সুতরাং আমাদের অবস্থান বুঝতে পারছেন। আমরা বসে আলোচনা করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।  তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  বলেন, ‘খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার আসছিলেন, একটি চিঠি দিয়েছেন আমরা দেখেছি। আইনমন্ত্রী একটি মতামত দিয়েছেন, সেটা আমরা পর্যালোচনা করছি, আরো অধিকতর জায়গায় যদি নিতে হয় তাহলে আমরা পরামর্শ নেব। এখন আমাদের পর্যালোচনায় এটা এসেছে যে, এটা নিয়ে আরো আমাদের কথা বলতে হবে।’

দুর্নীতি মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত বিশেষ শর্তে অস্থায়ীভাবে মুক্ত থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেওয়ার ‘আইনি সুযোগ নেই’ বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে মতামত পাঠিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়।

গতকাল মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা জানান। তিনি বলেন, ‘আইনমন্ত্রী জানিয়েছেন—বেগম জিয়াকে বিদেশে পাঠানোর আইনি সুযোগ নেই। কারণ, দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত হয়ে বিশেষ শর্তে অস্থায়ীভাবে মুক্ত আছেন উনি। সুতরাং আমাদের অবস্থান বুঝতে পারছেন। আমরা বসে আলোচনা করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।

তবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  বলেন, ‘খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার আসছিলেন, একটি চিঠি দিয়েছেন আমরা দেখেছি। আইনমন্ত্রী একটি মতামত দিয়েছেন, সেটা আমরা পর্যালোচনা করছি, আরো অধিকতর জায়গায় যদি নিতে হয় তাহলে আমরা পরামর্শ নেব। এখন আমাদের পর্যালোচনায় এটা এসেছে যে, এটা নিয়ে আরো আমাদের কথা বলতে হবে।’

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিত্সার জন্য তাকে বিদেশে নেওয়ার অনুমতি চেয়ে তার পরিবার নভেম্বরের মাঝামাঝি সরকারের কাছে চিঠি দিয়েছিল। সে চিঠির বিষয়ে আইনগত মতামতের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। আইন মন্ত্রণালয় থেকে বিষয়টি ‘আইনগতভাবে দেখার সুযোগ নেই’ বলে মতামত দিয়ে সেটি গত রবিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে।

উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হন খালেদা জিয়া। পরে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায়ও তার সাজার রায় হয়। তিনি কারাগারে থাকা অবস্থায় দেশে করোনা ভাইরাস মহামারি শুরু হলে তার পরিবারের আবেদনের পরিপেক্ষিতে গত বছরের ২৫ মার্চ নির্বাহী আদেশে সাময়িক মুক্তি দেয় সরকার। তবে তাতে শর্ত ছিল, তাকে দেশেই থাকতে হবে। পরে কারাগার থেকে বেরিয়ে খালেদা জিয়া ওঠেন গুলশানের বাসায়।

0 মন্তব্যসমূহ