সৈকতে নারী ও শিশুদের সুরক্ষায় আলাদা জোন

সৈকতে নারী ও শিশুদের সুরক্ষায় আলাদা জোন

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে নারী ও শিশুদের জন্য আলাদা নিরাপদ জোন তৈরি করা হয়েছে। নারী ও শিশুদের জন্য এই জোনে ৬০০ ফুট দীর্ঘ স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এই উদ্যোগ সৈকতে নারী পর্যটকদের সুরক্ষায় সহায়ক হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে সৈকতের লাবনী পয়েন্টে এ জোনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ। এ সময় তিনি জানান, সৈকতের ওই জোনে নারীদের জন্য আলাদা ড্রেসিংরুম ও লকাররুম করা হবে।

জেলা প্রশাসক বলেন, কক্সবাজার প্রশাসন সৈকতে নারী ও শিশুদের বিশেষ সুরক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে। এর ফলে এ জোনে নারী ও শিশুরা অনেক নির্বিঘেœ আনন্দে থাকা যাবে। পর্যটকবান্ধব হিসেবে কক্সবাজারকে গড়ে তুলতে আমরা সবাই কাজ করছি। হয়তো এ রকম ছোট উদ্যোগগুলোই পর্যটনে বড় ভ‚মিকা রাখবে। সম্প্রতি কক্সবাজার সৈকতে এক পর্যটক নারী ধর্ষণের ঘটনা দেশব্যাপী তোলপাড় দেখা দেয়।

এর প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসন সৈকতে নারী পর্যটকদের জন্য আলাদা সুরক্ষা জোন স্থাপন করেছেন। এ প্রসঙ্গে কয়েকজন পর্যটক মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বলেন, এতে সুবিধা অসুবিধা দুটোই আছে। তবে কক্সবাজার সৈকত ও হোটেল-মোটেল জোনে আগের মত নিরাপত্তামূলক পরিবেশ ফিরয়ে আনার জন্য জেলা ও পুলিশ প্রশাসনকে সতর্ক ভূমিকা পালন করতে হবে।

0 মন্তব্যসমূহ