তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচন: নৌকা ৫২৬, অন্যান্য ৪৭৪




তৃতীয় ধাপের ভোটে ১০০০ ইউপির মধ্যে নৌকা ৫২৬ ও ৪৭৪ স্বতন্ত্র এবং অন্যান্য প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন।

আবার এ ধাপে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছে ৪৪৬টিতে, যা মোট ইউপির ৪৪ দশিক ৯৬ শতাংশ। আর নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছে ৫২৫টিতে, যা মোট ইউপির ৫২ দশিমক ৯২ শতাংশ।

গত ২৮ নভেম্বর দেশের ১ হাজার ৮টি ইউপিতে ভোট হওয়ার কথা থাকলেও স্থগিত হয় ৭টি ইউপির নির্বাচন। ৯টি ইউপির বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত থাকায় ফল প্রকাশ হয়নি। ফলে ওইদিন নির্বাচন সম্পন্ন হয় ৯৯২টি ইউপিতে।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) ইসির উপ-সচিব মো. মিজানুর রহমান মাঠ পর্যায় থেকে পাঠানো ফলাফল সমন্বয় করে একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আওয়ামী লীগ চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছে ৫২৫টি ইউপিতে, স্বতন্ত্র ৪৪৬টিতে ও জাতীয় পার্টি ১৭টিতে জয় পেয়েছে। এছাড়া ১টি করে ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, ওয়ার্কার্স পার্টি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ)।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ৯৯ জন ও স্বতন্ত্র ১ জন মোট ১০০ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

তৃতীয় ধাপে ১ কোটি ৭৫ লাখ ৫৫ হাজার ২৬৬ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু ভোট দিয়েছেন ১ কোটি ৩০ লাখ ২৮ হাজার ৩১৮ জন। অর্থাৎ তৃতীয় ধাপে ভোট পড়েছে ৭৪ দশমিক ২১ শতাংশ।

এর আগে গত ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে ৮৩৪টি ইউপির মধ্যে ৩৩০টিতে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন। সেই হিসেবে মোট ইউপির ৩৯ দশমিক ৫৭ তথা ৪০ শতাংশ ইউপিতে জয় পেয়েছেন তারা।

অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছেন ৪৮৬টিতে, যা মোট ইউপির ৫৮ দশমিক ২৭ শতাংশ।

এদিকে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা ১০টি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছেন, যা মোট ইউপির ১ দশমিক ২ শতাংশ।

এছাড়া ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দলটির প্রার্থীরা ৪টি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছেন। আবার জাতীয় পার্টি (জেপি), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি, খেলাফত মসলিশ ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ১টি করে ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছে। অর্থাৎ এই পাঁচটি দল দশমিক ৯৬ শতাংশ ইউপিতে জয় পেয়েছে।

তারও আগে গত ২১ জুন অনুষ্ঠিত প্রথম ধাপের প্রথম অংশে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ২০৪টি ইউপির মধ্যে ১৪৮টি ইউপিতে আওয়ামী লীগ জয় পেয়েছে। এরমধ্যে আওয়ামী লীগের ২৮ প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। অর্থাৎ দলটি ৭২ দশমিক ৫৫ শতাংশ ইউপিতে জয় পেয়েছে।

স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয় পেয়েছে ৪৯ জন, যা মোট ইউপির ২৪ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ জয় পেয়েছে ১ ইউপিতে, যা মোট ইউপির দশমিক ৪৯ শতাংশ। জাতীয় পার্টি (জেপি) ও জাতীয় পার্টি (জাপা) পেয়েছে ৩টিতে, যা মোট ইউপির ২ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

ইতোমধ্যে তিন ধাপের ইউপি নির্বাচন সম্পন্ন করেছে ইসি। আগামী ২৬ ডিসেম্বর ৮৪০টি ইউপিতে এবং ২০২২ সালের ৫ জানুয়ারি ৭০৭টি ইউপিতে ভোটগ্রহণ করবে ইসি।

এবারের নির্বাচনে প্রতিটি ধাপে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থীদের স্বতন্ত্র প্রার্থীদের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হচ্ছে। এ স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। তবে এ পর্যন্ত ভোটে প্রায় ৪১ জনের মৃত্যু ইসিকে বিব্রতকর অবস্থায় পেলেছে বলে মন্তব্য করেছেন সিইসি কে এম নুরুল হুদা। তবে মোটামুটি ভোট শান্তপূর্ণ ও ভোটের হার ৬৫-৭০ শতাংম বলে জানিয়েছে ইসি।

Advertisement