সহিংসতার মধ্যেই ১ হাজার ইউপিতে ভোট শুরু

সহিংসতার মধ্যেই ১ হাজার ইউপিতে ভোট শুরু

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে গত দুই ধাপে সহিংসতায় প্রাণ গেছে অন্তত ৩০ জনের। এই প্রেক্ষাপটে তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন আজ রবিবার। রক্তক্ষয়ী সহিংসতার আশঙ্কার মধ্যেই সারাদেশে ১ হাজার ইউপি ও ৯টি পৌরসভায় ভোট নেয়া হবে আজ। নির্বাচন কমিশন (ইসি) সুষ্ঠু ও রক্তপাতহীন ভোট আয়োজনের প্রত্যয় জানালেও বাস্তবে এর প্রতিফলন ঘটবে কতটুকু- তা নিয়ে সংশয় রয়েছে সংশ্লিষ্টদের।

বিশ্লেষকরা এ দফায়ও ব্যাপক সহিংসতা ও প্রাণহানির আশঙ্কা করেছেন। তাদের মতে তৃণমূলের এই ভোট উৎসব অনেকাংশেই আতঙ্কে পরিণত হয়েছে। এবারো ভোটের প্রাক্কালে সহিংসতায় মেহেরপুরে একজনের মৃত্যু হয়েছে, আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। দেশের অন্যান্য এলাকায়ও সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, নির্বাচনে সহিংসতা রোধে আপ্রাণ চেষ্টা করা হচ্ছে। এ লক্ষ্যে আগাম গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ ও নজরদারি বাড়ানোর তাগিদ দেয়া হয়েছে। অনেকে গ্রেপ্তার হয়েছে। আরো অনেককে গ্রেপ্তারের তৎপরতা চলছে। এলাকার মাস্তান, যারা বিশৃঙ্খলা করতে পারে- তাদের আগাম গ্রেপ্তারের জন্য নির্দেশনা দিয়েছি। সিইসি ইতোমধ্যে বলেছেন, নির্বাচনে মৃত্যু সহিংসতা খুবই অনাকাক্সিক্ষত। এবার সহিংসতা বন্ধে ব্যাপক ব্যবস্থা নিয়েছে ইসি। প্রয়োজনে আরো কঠোর হওয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কোথাও সে রকম গণ্ডগোল হলে ভোট বন্ধ করে দিতে বলেছি। কোনো প্রার্থী বা তার সমর্থকরা সহিংসতায় জড়ালে প্রার্থিতা বাতিল করা হবে বলেও জানান তিনি।

কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ জানান, নির্বাচন যাতে সুষ্ঠুভাবে শেষ হয় তার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে, বাড়ানো হয়েছে মোবাইল ফোর্স। গতকাল শনিবার ভোটসামগ্রী পৌঁছে গেছে কেন্দ্রে কেন্দ্রে। গত শুক্রবার থেকে টহলে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, মাঠে আছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে হাজারখানেক টিম। গতকাল থেকে তারা মাঠে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে। বিভিন্ন অনিয়মের কারণে সাজাও দেয়া হচ্ছে অনেককে। শান্তিপূর্ণ ভোট অনুষ্ঠানের জন্য মাস্তান চাঁদাবাজদের গ্রেপ্তারসহ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

vfuএদিকে বিগত দুদফা নির্বাচনের অভিজ্ঞতায় সহিংসতা বন্ধে গত ২৪ নভেম্বর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক করে ইসি। সেখানে প্রাণহানি ও সহিংসতা বন্ধে সংশ্লিষ্টদের আরো কঠোর হওয়ার নির্দশনাসহ বাড়তি আইনশৃঙ্খলা বাহনী মোতায়েন, মোবাইল কোর্ট ও বিজিবি-র‌্যাবের টহল বাড়ানো হয়েছে। বাড়ানে হয়েছে কোস্টগার্ড, আর্মডফোর্সসহ গোয়েন্দা বাহিনীর তৎপরতা।

ইসি সূত্র জানিয়েছে, আজ রবিবার ১ হাজার ইউনিয়ন পরিষদ ও ৯টি পৌরসভায় সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট নেয়া হবে। নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ করেছে কমিশন।

ইসির জনসংযোগ পরিচালক যুগ্মসচিব এস এম আসাদুজ্জামান জানান, তৃতীয় ধাপে নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ৫৬৯ জন। তাদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ১০০ জন, সংরক্ষিত সদস্য ১৩২ ও সাধারণ আসনের সদস্য রয়েছেন ৩৩৭ জন। তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে সারাদেশে ৫০ হাজার ১৪৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই ধাপে তফসিল ঘোষণা করা হয়েছিল ১ হাজার ৭টি ইউপির। বিভিন্ন কারণে স্থগিত হয়েছে ৭টির ভোট।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের তথ্য, তৃতীয় ধাপের এই এক হাজার ইউপিতে মোট ভোটার দুই কোটি এক লাখ ৪৯ হাজার ২৭৮ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ৯৯ লাখ ৩২ হাজার ৫৩০ এবং পরুষ ভোটার এক কোটি দুই লাখ ১৫ হাজার ৪২৩ জন। এছাড়া তৃতীয় লিঙ্গের ১৯ জন ভোটার রয়েছেন। নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন চেয়ারম্যান পদে চার হাজার ৪০৯ জন, সদস্য পদে নারীদের জন্য সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ১১ হাজার ১০৫ জন এবং সাধারণ ওয়ার্ডে ৩৪ হাজার ৬৩২ জন। এরই মধ্যে প্রথম ধাপে ৩৬৯টি ও দ্বিতীয় ধাপে ৮৩৮টি ইউপিতে ভোট সম্পন্ন হয়। দেশে মোট চার হাজার ৫৭১টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে। এর মধ্যে এবার সাড়ে চার হাজার ইউপিতে নির্বাচন হচ্ছে। বাকিগুলোতে মামলা জটিলতার কারণে নির্বাচন আটকে আছে।

যে ৯টি পৌরসভায় ভোট : লক্ষ্মীপুর সদর, পাবনার বেড়া, নোয়াখালীর সেনবাগ, রংপুরের পীরগঞ্জ, পটুয়াখালীর গলাচিপা, টাঙ্গাইলের ঘাটাইল, মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল, গাজীপুরের কালিয়াকৈর ও নীলফামারী সদর পৌরসভা।

Advertisement