পরিবহন ধর্মঘটে অসহায় মানুষ, ভোগান্তি আরও বেড়েছে

পরিবহন ধর্মঘটে অসহায় মানুষ, ভোগান্তি আরও বেড়েছে

পরিবহন ধর্মঘটের তৃতীয় দিনে জনভোগান্তি আরও বেড়েছে। সরকারি ও বেসরকারি সব অফিসের লোকজন রাস্তায় নেমে অসহায় অবস্থায় পড়তে হয়েছে। রাজধানীর সড়কগুলোতে লোকজনকে সময়মতো অফিসে পৌঁছানোর জন্য ছোট যানবাহনের পেছনে ছুটতে দেখা গেছে। রবিবার (৭ নভেম্বর) পরিবহন সেক্টরের অচলাবস্থা নিরসনে বিআরটিএ পরিবহন নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসবে।

বাস ও পণ্যবাহী পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা তৃতীয় দিনের মতো ধর্মঘট অব্যাহত রাখার কারণে সারাদেশে সড়কে যাত্রীদের তীব্র ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। রবিবার সরকারি-বেসরকারি সব অফিস খুলেছে। সময়মতো অফিসে যাওয়ার জন্য বেশ সকাল সকাল লোকজন ঘর থেকে বের হয়। কিন্তু রাস্তায় নেমেই পড়তে হয় চরম ভোগান্তিতে। গণপরিবহন না থাকায় কর্মজীবী মানুষকে পায়ে হেঁটে এবং কয়েকগুণ বাড়তি ভাড়া দিয়ে রিকশা-অটোরিকশায় কর্মস্থলে যেতে দেখা গেছে। গত দুই দিনের তুলনায় আজ রবিবার সড়কে মানুষের ভিড় সবচেয়ে বেশি।

প্রাইভেট কার, রিক্সা সহ ছোট যানবাহনের সংখ্যাও বেড়েছে। ঢাকার সব রাস্তা দিয়েই চলছে রিকশা। যারা রিকশা কিংবা সিএনজি ধরতে পারেননি তাদেরকে রিকশাভ্যানে গন্তব্যস্থলে রওনা দিতে দেখা গেছে। রাজধানীর সব রাস্তাতেই মানুষের ভিড় রয়েছে। সকাল থেকে সাইনবোর্ড মোড়ে শত শত মানুষ যানবাহনের জন্য অপেক্ষা করেন। ট্রাক, কাভার্ডভ্যানে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এবং মতিঝিলের দিকে রওনা হয়েছে। ভাড়া কয়েকগুণ বেশি হওয়ায় পরেও লোকজনকে অটোরিকশা বা লেগুনা আসলেই প্রায় যুদ্ধ করে ওঠার চেষ্টা চালায়। চলাফেরার কারণে যানবাহনে উঠতে না পেরে অনেকেই আবার পায়ে হেঁটে মতিঝিলের দিকে রওনা হয়।

অপরদিকে, আজও রাজধানীর কোনো বাস টার্মিনাল কাউন্টার থেকে দূরপাল্লার কোন বাস ছেড়ে যায়নি এবং ঢাকায় আসেনি। জরুরি প্রয়োজনে যাদের দূরের জেলায় যেতে হচ্ছে সেসব যাত্রীরা ভেঙে ভেঙে ছোট পরিবহনে নানা দুর্ভোগের মধ্যে দিয়ে গন্তব্যে পৌঁছানোর চেষ্টা করছে। গাবতলী বাস টার্মিনালের সব বাস কাউন্টার আজকে বন্ধ দেখা যায়। পরিবহন কর্মীরা টার্মিনালে বিভিন্ন জায়গায় বসে অলসভাবে সময় কাটাচ্ছে। তারা জানান আজ বৈঠকে আলোচনার পর বিকেল থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে শুনেছেন।

এদিকে আজ দুপুরে বাসভাড়া বাড়ানোর পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের দাবির বিষয়ে বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ এবং পরিবহন মালিক শ্রমিক সংগঠনের নেতারা অচলাবস্থা নিরসনে বৈঠকে বসবেন। এই বৈঠকে বিআরটিএ কর্মকর্তারা পরিবহনে অচলাবস্থা নিয়ে আলোচনা করবেন এবং পরিবহন মালিকদের কথা শুনবেন।

0 মন্তব্যসমূহ

-------- আমাদের সকল পোস্ট বা নিউজ বাংলাদেশের বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকা থেকে নেয়া - প্রতিটি পোস্টের ক্রেডিট সেই পোস্টের শেষ ভাগে দেয়া আছে।