পুকুরে ভেসে উঠলো মা, বাবা ও মেয়ের ক্ষতবিক্ষত লাশ

পুকুরে ভেসে উঠলো মা, বাবা ও মেয়ের ক্ষতবিক্ষত লাশ

খুলনায় একই পরিবারের তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) সকালে কয়রা উপজেলার বামিয়া গ্রামের বাগালী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের পাশে পুকুর থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন, হাবিবুল্লাহ গাজী (৪২), তার স্ত্রী বিউটি (৩৫) ও সপ্তম শ্রেণির মেয়ে টুনি (১৩)। নিহত হাবিবুল্লাহ গাজী একই এলাকার আব্দুল মাজেদ গাজীর ছেলে।

বামিয়া গ্রামের ইউপি সদস্য আতিয়ার রহমান জানান, সকাল ৭টার দিকে স্থানীয় দুজন ব্যক্তি বাগালী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের পাশের পুকুরের পানিতে তাদের লাশ ভাসতে দেখে। খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের লাশ দেখতে পান। নিহতের মধ্যে হাবিবুল্লাহর সমস্ত শরীরে ধারালো অস্ত্রের একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অস্ত্রের আঘাতে মাথা প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তার হাত-পা বাধা ছিল। এছাড়া তার মেয়ে টুনির কপালেও ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। নিহত হাবিবুল্লাহ কৃষিকাজ ও রাজমিস্ত্রির জোগালের কাজ করতেন।

স্থানীয় লোকজন জানান, গ্রামের লোকজন ওই পুকুরের পানি বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করেন। সকালে একজন পুকুর থেকে পানি নেওয়ার সময় মরদেহগুলো ভাসতে দেখেন।

পুলিশ জানায়, হাবিবুল্লাহর বাড়ির দরজা-জানালা ভাঙ্গা এবং ঘরে রক্তের দাগ রয়েছে। দরিদ্র ওই পরিবারের বাড়ি থেকে লুট করার মতো তেমন কোনো মালামাল নেই। ধর্ষণের পর এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

পুলিশ আরও জানায়, নিহত হাবিবুল্লার হাত-পা বাঁধা ছিল এবং তার স্ত্রী ও মেয়ের জামা কাপড় ছেঁড়া ছিলো।

কয়রা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মো. মো শাহাদাৎ হোসেন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেছে। তবে, কী কারণে এবং কারা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে এখনো জানতে পারিনি। ঘটনার কারণ জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।

Advertisement