পরনিন্দা ও পরচর্চা করা একেবারেই খারাপ নয়

আপনিও কি পরনিন্দা ও পরচর্চা করেন, কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

আপনার চারপাশে কি পরনিন্দা করে এরকম মনুষ রয়েছে? অথবা নিজেই কি পরনিন্দা সবার আড়ালে করে থাকেন? গবেষণায় প্রমাণিত, পরনিন্দা ও পরচর্চা করা একেবারেই খারাপ নয় যদি তা অন্য কারোর জন্য ক্ষতিকারক না হয়।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, গসিপের রয়েছে উপকারও। তাই সুযোগ পেলেই কারও নামে গসিপ করতে ইচ্ছে করলে সেটা করতেই পারেন, কিন্তু গসিপ ততক্ষণই ভাল যচক্ষণ তা অন্য কারোর জন্য ক্ষতিকারক না হয়। খবর জি নিউজের।

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, গসিপ করলে নাকি শরীর, মন থাকবে চাঙ্গা। গসিপ মন হালকা করে।

রোজকার জীবনে অনেকের সঙ্গেই আলাপ ঘটে। সব সময়ই সবাই মন জিততে পারে না। অনেক সময় অপছন্দের ব্য়ক্তির সঙ্গেই কথা বলতে বাধ্য হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই অবস্থায় নির্দিষ্ট ব্য়ক্তির উপর রাগ চেপে না রেখে, তার নামে বিন্দাস হয়ে গসিপ করুন। দেখবেন, হালকাও থাকবেন আর চাপ যাবে কমেও। তবে হ্যাঁ, দেখে নেবেন যার সঙ্গে গসিপ করছেন, সে যেন বিশ্বাসী হয়।

বিশেষজ্ঞদের মতে, গসিপ করুন মন খুলে, কিন্তু সচেতনভাবে শব্দ প্রয়োগ করুন। উলটো দিকের লোকটা ঠিক কেমন, সেটা বুঝেই গসিপ করবেন। তবে অফিসে গসিপ করার সময় সাবধানতা অবলম্বন করার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। অফিসের পরিস্থিতি বুঝে তবেই গসিপে অংশ নিন। অফিসে নিজে থাকুন সচেতন। আপনার উলটো দিকের লোকটা ঠিক কী ভাবছে সেটাও গসিপের মধ্য়ে দিয়ে জেনে যাবেন।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, গসিপ মানে অন্যের ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নেওয়ার একটা দারুণ হাতিয়ার। যার সঙ্গে গসিপ করছেন, তার অবস্থায় নিজেকে রাখুন, তাহলেই ধরতে পারবেন আপনার ভুলগুলো।

ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় এর গবেষণায় প্রমাণিত, রাগ, আক্রোশ, মানসিক চাপ থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যায় গসিপের মাধ্যমে। এমন বন্ধুকে বেছে নিন, যার সঙ্গে গসিপ করলে আপনার মন হালকা হয়ে যাবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, গসিপ এক ধরনের স্ট্রেস বাস্টার। তবে মাথায় রাখুন, আপনার গসিপে যদি কেউ গভীরভাবে আঘাত পায়, তাহলে কিন্তু সেই গসিপ একেবারেই ভাল নয়! তাই গসিপ করুন সাবধানে।

0 মন্তব্যসমূহ

-------- আমাদের সকল পোস্ট বা নিউজ বাংলাদেশের বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকা থেকে নেয়া - প্রতিটি পোস্টের ক্রেডিট সেই পোস্টের শেষ ভাগে দেয়া আছে।