গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেওয়ায় ক্ষুব্ধ এমপি, মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে গুলিবির্ষণ

গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেওয়ায় ক্ষুব্ধ এমপি, মুক্তিযোদ্ধার বাড়িতে গুলিবির্ষণ

পাবনার বেড়া উপজেলার পুরান ভারেঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান ও মুক্তিযোদ্ধা এ এম রফিকউল্লাহর বাড়িতে গুলিবর্ষণ ও ককটেল হামলা চালিয়েছে দুর্বত্তরা। রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ভোর চারটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার প্রতিবাদে কাশীনাথপুর এলাকায় ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন স্থানীয়রা।

মুক্তিযোদ্ধা এ এম রফিকউল্লাহ জানান, রবিবার ভোর চারটার দিকে দুটি মোটর সাইকেলে চার জন সন্ত্রাসী আমার রঘুনাথপুর বাড়িতে একের পর এক ককটেল নিক্ষেপ করে। বাড়ির লোকজন বোমার শব্দ পেয়ে ছুটে গেলে সন্ত্রাসীরা গুলিবর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ এসে অবিস্ফোরিত কয়েকটি ককটেল উদ্ধার করেছে।

তিনি আরো জানান, পাবনা- ২ আসনের সাবেক এমপি আজিজুল হক আরজু নগরবাড়ী ঘাটে সরকারি ৮ একর জমি দখল করে অবৈধ মার্কেট নির্মাণ করেছেন। আমি এ বিষয়ে গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেওয়ায় সাবেক এমপি আমার উপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন। শুক্রবার একটি দোয়া মাহফিলের অনুষ্ঠানে আমাকে অকথ্য গালাগাল করে প্রকাশ্যে হত্যার হুমকি দেন। আমার ধারণা, সাবেক এমপির নির্দেশে আমাকে হত্যার উদ্দেশে সন্ত্রাসীরা এ হামলা চালিয়েছে।

ঘটনার পর কাশীনাথপুর এলাকায় ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন চেয়ারম্যান রফিকউল্লাহর সমর্থকেরা। এ সময় সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তারা অবিলম্বে সাবেক এমপি আজিজুল হক আরজুর গ্রেপ্তার দাবি করেন।

তবে হামলার ঘটনায় নিজের সম্পৃক্ততা অস্বীকার করেছেন সাবেক এমপি আজিজুল হক আরজু। তিনি বলেন, ধারাবাহিক রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ঘটনা ঘটিয়ে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা হচ্ছে। আমি রাজনৈতিকভাবেই সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করব।

আমিনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রওশন আলী বলেন, হামলার খবর পেয়েছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভোরের কাগজ

Advertisement