মহাকাশে প্রথমবারের মত সাধারণ মানুষ

মহাকাশে প্রথমবারের মত সাধারণ মানুষ


অনেকেরই ইচ্ছে থাকে জীবনে একবার হলেও মহাকাশ ভ্রমণের। তবে পেশাদার মহাকাশচারীরা ছাড়া সাধারণ মানুষের মহাকাশ ভ্রমণের সুযোগ না থাকায় সেই ইচ্ছে আর পূরণ হয় না। 

তবে এবার সেই ইচ্ছে সত্যিকার অর্থে পূরণ করতে বেসামরিক নাগরিকদের নিয়ে প্রথমবারের মতো পৃথিবীর কক্ষপথে গিয়েছে স্পেসএক্সের নভোযান ফ্যালকন নাইন। আর এর মাধ্যমে মহাকাশ ভ্রমণে উন্মোচন হয়েছে এক নতুন দিগন্তের।

বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে ৪ বেসামরিক নাগরিককে পৃথিবীর কক্ষপথের উদ্দেশে রওনা হয় ফ্যালকন নাইন রকেটটি। এ মহাকাশযাত্রার নাম দেওয়া হয়েছে ইন্সপিরেশন ফোর।

মার্কিন ধনকুবের ইলন মাস্কের মালিকানাধীন রকেট নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের ড্রাগনের ফ্যালকন নাইন রকেট।

রকেটটিতে করে মহাকাশে যাওয়া নভোচারীদের কেউই পেশাগতভাবে নভোচারী নয়। এদের সবাই সাধারণ মানুষ, শুধু ইচ্ছে পূরণ করতেই মহাকাশে যাওয়া।

এর মাধ্যমে স্পেসএক্সও প্রথমবারের মত পৃথিবীর কক্ষপথে বেসামরিক নাগরিকবাহী নভোযান পাঠাল।

টিকিট কিনে ঐতিহাসিক এ যাত্রার সাক্ষী হন মার্কিন বিলিয়নেয়ার জ্যারেড আইস্যাকম্যান। 



তিনদিনের এই মহাকাশযাত্রায় তার সঙ্গী হয়েছেন ২৯ বছরের ক্যান্সারজয়ী হেইলি আরসেনক্স, ৫১ বছর বয়সী ভূ-বিজ্ঞানী সিয়ন প্রোক্টর ও মার্কিন বিমান বাহিনীর সাবেক সদস্য ৪২ বছর বয়সী ক্রিস সেমব্রোস্কি।

মহাকাশযানটি পৃথিবী থেকে প্রায় ১২৫ মাইল ওপরে ওঠার পর, স্পেসএক্সের মাধ্যমে এক বিবৃতিতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান আইজ্যাকম্যান।

আগামী তিনদিন পর্যায়ক্রমে ৫৭৫ কিলোমিটার উচ্চতায় পৃথিবীর কক্ষপথে পৌঁছাবেন চার নভোচারী।

পুরো ফ্যালকন নাইনের ক্যাপসুলে বসে পৃথিবীর কক্ষপথ প্রদক্ষিণ করবেন তারা।

Advertisement